-->

GEO T15 Price and Review | বাটন ফোনের কাছে টাচ ফোন ফেল !

Amazing Feature Phone GEO T15 Price and Full Specifications by BDHELP24.com ||

প্রিয় বন্ধুরা আজ আপনাদের সাথে একটি অসাম ফিচার ফোন রিভিউ শেয়ার করতে যাচ্ছি। ফোনটি ফিচার ফোন হলেও যা দেখে আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না। শুধু কি অবাক হবেন, রীতিমতো মাথা নষ্ট হয়ে যাবার মত ব্যাপার। তো বন্ধুরা চলুন দেখে নিই অবাক হবার মত এমন কি আছে GEO T15 ফোনটিতে।

বন্ধুরা, ফোনটি দেখতে আর দশটা সাধারণ ফিচার ফোনের মত হলেও আসলে কিন্তু ফোনটি সাধারন ফিচার ফোন নয়, এটা খুবই স্পেশাল একটি ফোন এবং কেন স্পেশাল সেটা একটু পরেই জানতে পারবেন।

GEO T15 Price and Full Specifications

ফিচার ফোন হলেও ফোনটিতে একটি অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে আর সেটা হচ্ছে KaiOS অপারেটিং সিস্টেম। KaiOS সম্পর্কে আপনাদেরকে কিছু জানাতে চাই, বিটিআরসির তথ্য মতে বছর শেষে আমাদের দেশে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ১৭ কোটির মত যার মধ্যে প্রায় ১০ কোটি মানুষ ফিচার ফোন ব্যবহার করে, তারা স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে না। বন্ধুরা তবে আবার এটা ভাববেন না যে তারা স্মার্ট নয় ! তারা অবশ্যই স্মার্ট কিন্তু তারা ফিচার ফোন ব্যবহার করে না অথবা এরকম হতে পারে যে অনেকেই স্মার্টফোনের পাশাপাশি একটা ফিচার ফোনও রেখে দেয়।

KaiOS ফিচার ফোনের জন্য তৈরি করা দারুন একটি অপারেটিং সিস্টেম যেটা ব্যবহার করা হয়েছে এই Geo T15 মোবাইল ফোনে। এখানেই আসল মজার ব্যপারটি ঘটে গেছে। কারণ KaiOS অপারেটিং সিস্টেম এই সাধারন ফিচার ফোনটিকে বানিয়ে ফেলেছে অসাধারণ একটি ফিচার ফোন।

এবার আপনাদের কে আর অপেক্ষায় রাখবো না, তো চলুন এবার ফোনটির ফিচার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় আলোকপাত করা যাক। ফোনটার সবচাইতে এক্সাইটিং ফিচার হল এর থার্মোমিটার। এটা দিয়ে খুব সহজেই কারো শরীরের তাপমাত্রা মাপা যাবে এবং যেটা খুবই সঠিক ও নিখুৎ হয়। এখন যেহেতু সারা পৃথিবীতে একটা কোভিড ১৯ ট্রেন্ডিং চলছে কাজেই থার্মোমিটারটা খুব কাজে দিবে আপনার জন্য। আমার তো মনে হচ্ছে পৃথিবীতে প্রথম একটা ফোন যেটাতে থার্মোমিটার রয়েছে যা দিয়ে আপনার শরীরের টেম্পারেচার আপনি সহজেই মাপতে পারবেন।

Geo T15 ফোনে রয়েছে ওয়াইফাই সাপোর্ট। ভাবতে পারেন বন্ধুরা একটি ফিচার ফোন চলছে ওয়াইফাই দিয়ে, এটাও কি সম্ভব ! আমার তো ভাবতেই অবাক লাগছে তবে অবাক হলেও এটাই সত্য ফোনটি ওয়াইফাই দিয়ে চলতে পারে। দেখতে ছোট হলেও এটা ওয়াইফাই সাপোর্ট দিয়ে চলবে শুধু তাই নয় আপনি তাকে পোর্টেবল সাপোর্টে ব্যবহার করতে পারবেন। আপনাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যে ইন্টারনেট পোর্টেবিলিটির জন্য পকেট রাউটার কিনে থাকেন বা কেনার কথা ভাবছেন আমি তাদেরকে বলবো আপনার জন্য একটি খুব ভালো পছন্দের জিনিস হতে পারে । আপনি মোবাইল ইন্টারনেট অ্যাক্টিভ করুন তারপরে হটস্পট চালু করে দিন ব্যাস, তৈরি হয়ে গেলেন ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য।

দারুন কিছু গেমসও রয়েছে ফোনটিতে যেটা এই ২০২১ সালে আপনার কাছে হাস্যকর মনে হতে পারে তবে সত্যিই গেমসগুলো খুব মজার এবং সুন্দর। KaiOS এর রয়েছে নিজস্ব অ্যাপস স্টোর যেখানে আপনি অনেক অ্যাপস ডাউনলোড দিতে পারবেন এবং অনেক গেমস ডাউনলোড দিতে পারবেন। 

প্রিয় বন্ধুরা ফিচার ফোন মনে করে আমি হয়তো ফোনটাকে পাত্তা নাও দিতে পারেন কিন্তু যখন জানতে পারবেন এটি ফোরজি সাপোর্ট করে তখন কিন্তু পাত্তা না দিয়ে থাকতে পারবেন না শুধু কি তাই যখন আরও জানতে পারবেন যে ফোনটি V.O.L.D সাপোর্ট করে। তখন বলুন তো কেমন লাগবে আপনার ? আমার তো মনে হয় যে আপনি সত্যিই টাসকি লেগে যাবেন। আপনার বারবার মনে হতেই পারে এটা কি ফিচার ফোন নাকি স্মার্টফোন তবে টাসকি লাগার আগে চলুন, ফোনটির আরো কিছু ফিচার নিয়ে আলোচনা করা যাক

বাটনগুলো না থাকলে আপনি মনে করতেন যে এটি আসলে ফিচার ফোন নয় এটি একটি স্মার্টফোন। এতে built-in পাচ্ছেন ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, গুগল ম্যাপ এর মত অ্যাপ আর এই বিষয়গুলোই ফোনটাকে নিয়ে গেছে অন্য একটি উচ্চতায় যা আপনাকে অবাক করতে বাধ্য করছে। ফোনটিতে রয়েছে গুগল সার্চের সুবিধা এবং পাশাপাশি রয়েছে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাপস। এগুলো ব্যবহার করে আপনার যেটা মনে হবে যে ফোনটি যেহেতু টাচ ফোন না আর স্ক্রিনটা যেহেতু একটু ছোট, সেক্ষত্রে একটু সময় লাগবে আপনার তবে, ব্যবহার করে আপনি কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন খুব ভালোভাবে।

ফোনিটতে টাচ Key হিসাবে কাজ করবে স্কিনের মাউস পয়েন্টারের মতো দেখতে একটা বাটন। যেটা আপনি উপর নিচে ডানে বামে নিতে পারবেন নেভিগেশন বাটন দিয়ে। এই বিষয়টা আপনার কাছে খুব একটা আরামদায়ক নাও মনে হতে পারে। তবে ভাবুনতো ফিচার ফোনে আপনি এইরকম কিছু ফিচার পেয়ে যাচ্ছেন এটা কিন্তু বলতে হয় যে অন্যান্য ফিচার ফোনের চাইতে ফোনটাকে এডভান্স লেভেলে নিয়ে গিয়েছে।

গুগল এ গিয়ে আপনি সার্চ করতে পারবেন যেকোন ওয়েবসাইট, খুজেঁ নিতে পারবেন আপনার যেকোন তথ্য। যা কিনা রীতিমতো সত্যিই অবিশ্বাস্য একটি ব্যাপার। আর যদি এর হোয়াটসঅ্যাপ নিয়ে আপনি এক্সপেরিমেন্ট করেন তাহলে তো বলতে গেলে যে স্মার্টফোনের মতো এখানে আপনি হোয়াটসঅ্যাপ এর সুবিধাগুলো পাবেন যেমন কোন ম্যাসেজ ডেলিভারি হলে সেন্ড আইকন টা নীল হয়ে যাওয়া এমনকি গ্যালারি থেকে ছবি শেয়ার করা ইত্যাদি ইত্যাদি।

শুধু কি তাই বন্ধুরা এই ফিচার ফোনটি দিয়ে আপনি আপনার ভয়েজ মেসেজ পাঠাতে পারবেন। এবার কি বলবেন আপনারা অবাক হননি ফিচার ফোন হিসাবে এর চারিত্রিক বৈশিষ্ট গুলো জানার পর। তবে ফোনটিতে এখনো কলিং ফিচার বা ভিডিও কলের ফিচার যুক্ত করা হয়নি। সূত্র বলছে যে আগামীতে আপডেট যে ফোনটি আসছে তাতে এই ফিচারগুলো যুক্ত করে দেওয়া হতে পারে। 

বন্ধুরা এতে রয়েছে লাভ ক্যালকুলেটর যেটা দিয়ে আপনার ভালবাসার স্কোর আপনি মাপতে পারবেন। আমি মেপে দেখেছিলাম, আমার ভালোবাসার পয়েন্ট হয়েছিলো মাত্র ৩৫ স্কোর। অবশ্য এটা দেখে আমি হতবাক হয়েছিলাম। একটা বিরহের গান আমাকে গাইতে হয়েছে এই ক্যালকুলেটর দিয়ে আমার ভালবাসার স্কোর মাপার পর।

বিরহের পরে আপনি যেটা জানতে পারবেন ফোনটিতে রয়েছে কিউআর কোড স্ক্যান করার ব্যবস্থাও। মাথাই নষ্ট!

আপনি এখান থেকে নিউজ পড়তে পারবেন ওয়েদার আপডেট জানতে পারবেন এছাড়া তো মিউজিক প্লেয়ার রয়েছে ।যেটা তো সব ফোনেই থাকে। রয়েছে ক্যালেন্ডার সাথে রয়েছে রাশিফল পাশাপাশি আপনি ইমেইল ব্রাউজ করতে পারবেন ।

512mb RAM রয়েছে আর ইন্টার্নাল মেমোরি আছে 4gb. আর এতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের সিক্স সেভেন থ্রি টু নামের একটা প্রসেসর, আর quad-core সিপিইউ রয়েছে ফোনটাতে।

রয়েছে ডুয়াল সিম সাপোর্টেড আরো রয়েছে ডেডিকেটেড মেমোরি কার্ড সলোট। 

ফোনটিতে ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে 1700 Mha. আর এর বক্সে পাবেন আপনি সাড়ে তিন ওয়াটের একটা চার্জার। যদিও সাড়ে তিন ওয়াটের চার্জার খুবই অল্প আর কি।  তবুও ফিচার ফোন হিসেবে এটাই তো যথেষ্ট এছাড়া দামের বিষয়টিও আপনাকে মাথায় রাখতে হবে। এটাকে ফুল চার্জ করতে পারবেন প্রায় দুই ঘণ্টার মতো সময় লাগতে পারে। আর ফুল চার্জ এ ব্যাটারি ব্যাকআপ পাবেন যদি আপনি হেভি ভাবে ব্যবহার করেন বিশেষ করে যেমন ইন্টার্নেট ব্রাউজিং,ভিডিও প্লে করেন তাহলে এটা আপনাকে ব্যাটারি ব্যাকআপ দিতে পারে এক থেকে দেড় দিন।  আর যদি আপনি হেভি ব্যবহার না করে সে ক্ষেত্রে ফুল চার্জ ব্যাটারি ব্যাকআপ পাবেন ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যে 

পাওয়ার বাটন ৪ সেকেন্ড প্রেস এবং হোল্ড করলে পেয়ে যাবেন মেমোরি,   ক্লিনার, রিস্টার্ট এর মতো কিছু অপশন ।

পারফরম্যান্সের কথা যদি বলা হয় তাহলে বলা যেতে পারে ওভারঅল মোটামুটি পারফরম্যান্স এটার কাছ থেকে আপনি আশা করতে পারেন। কারন একটা ফিচার ফোন থেকে আমার মনে হয় এর থেকে বেশি কিছু আশা করাটাও  আশাব্যঞ্জক হবে না 

তবে হ্যাঁ মাঝে মাঝে কিছু লেক পাওয়া যেতে পারে। যেমন কিছু কিছু অ্যাপস হয়তো একটু দেরীতে ওপেন হবে। 

বন্ধুরা ফোনের তো টাসকি লাগার মতো বিষয়গুলো আলোচনা করা হলো এবার ফোনের কিছু নেগেটিভ বিষয়ে আপনাদের মাঝে তুলে ধরা প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি। 

যেমন এর ডিসপ্লে কোয়ালিটি আপনার কাছে খুব একটা ভালো নাও লাগতে পারে ডিসপ্লে সাইজ মাত্র ২.৪ ইঞ্চি যেটা টি এফ টি প্রযুক্তির আরেকটু অন্য অ্যাঙ্গেল থেকে দেখতে গেলে খুব একটা বোঝা যায় না আর কি।  মানে নেগেটিভ নেগেটিভ একটা ভাব রয়েছে।  তবে মনে হচ্ছে যে ফোন কোম্পানিটির এ ব্যাপারে লক্ষ্য রাখা উচিত যে আগামীতে আরও আপডেট ভার্সন এ এই ডিসপ্লের বিষয়টি যেন আরেকটু লক্ষ রাখা হয় ।

ক্যামেরা কোয়ালিটি তেমন একটা না। মানে ফিচার ফোনের ক্যামেরা সম্পর্কে তো আপনারা জানেনই। একটা ফিচার ফোনে কি রকম ক্যামেরা থাকে ঠিক ওইরকম একটা ক্যামেরা ফোনে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই এই বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা আপনাদের সঙ্গে করলাম না

তবে ফোনটি লুক এন্ড ফিল নিয়ে কিছু কথা বলতে হয়, এটাতে অনেক অনেক ফিচার দিয়ে ভরা থাকলেও ফোনটা দেখতে একেবারে সাধারণ আর দশটা ফিচার ফোনের মত নরমাল দেখা যায়। যেটা হাতে নিলেই অনেকে মনে করতে পারে এটা ৫০০ টাকা বা হাজার টাকার একটা ফোন। তবে এক্ষেত্রে আমার বিশ্লেষণ যেহেতু ফোনটাতে অনেকগুলো ফিচার এড করা হয়েছে আবার কিছু ফিচার এক্সাইটিং বলতে গেলে টাশকি লাগার মতো ফিচার রয়েছে তাই কোম্পানীটির উচিত ফোনের লুকিং এর এই বিষয়টিতে একটু নজর দাও ।

লাউডস্পিকারে কোয়ালিটি আরো ইমপ্রুভ করা দরকার কারণ এটা একটা মাল্টিমিডিয়া ফোন, তাই এটার স্পিকার কোয়ালিটি আরেকটু বেটার হওয়া দরকার রয়েছে।  কারণ এখানে ইউটিউব রয়েছে ফেসবুক রয়েছে সুতরাং লাউডস্পিকারের মান টা আরেকটু ভালো হওয়া দরকার। 

এইবার টাসকি লাগানো এই ফোনটার দামের ব্যাপারে আপনাদেরকে জানাবো। অফিশিয়াল ভাবে ফোনটির দাম ধরা হয়েছে ৩ হাজার পাঁচশত টাকা। ইনিশিয়ালি আপনাকে ফোনটার দাম ফিচার ফোন হিসেবে একটু বেশি মনে হতে পারে।  তবে কোম্পানির এখানে কিছু যুক্তি রয়েছে তাদের বক্তব্য যে, ফোনটিতে বেশকিছু অ্যাডভান্স লেভেলের ফিচারের যোগ করা হয়েছে যে কারণে প্রোডাকশন কস্টিং একটু বেশি পড়ে গিয়েছে। 

এক্ষেত্রে আমি যেটা বলব বন্ধুরা , যদি আপনার দামি স্মার্ট ফোন কেনার বাজেট না থাকে। অথবা আগ্রহ না থাকে। তাহলে অল্প দাম দিয়ে নিম্ন কোয়ালিটির স্মার্ট ফোন না কিনে আপনি এই ফিচার ফোনটি ব্যবহার করতে পারেন।

GEO T15 Price List:

 

GEO T15 Price in Bangladesh BDT. 3490/-

GEO T15 Price in India RS. 2999/-

GEO T15 Price in Pakistan PKR. 4450/-

 

Tags: GEO T15 Price, GEO T15 Price in bd, GEO T15 Price in Bangladesh, GEO T15 Price in India, GEO T15 Price in Pakistan, GEO T15 Full Phone Specifications, GEO T15 Latest Price, GEO T15 Features, GEO T15 Review, GEO T15 Unboxing and Review, GEO T15 Official Price, GEO T15 Online Price.

SeeCloseComments

1 Komentar

Cancel