-->

২০২১ সালে টেকনোলোজিতে আসছে চমকের পর চমক! | Exciting Technology Update for 2021

Must Read our Exciting Technology Update for 2021 ||

বন্ধুরা আজ আপনাদের শেয়ার করতে যাচ্ছি টেকনোলোজি ২০২১ সালের জন্য নতুন কিছু চমকপ্রদ তাজা খবর। তো দেরি না করে চলুন দেখে নিই নতুন বছরে কি কি চমক থাকছে আমাদের জন্য।


ZTE Nubia Redmagic 6 : বন্ধুরা আজ আপনাদের কে প্রথমেই যে খবর টা জানাবো তা হলো Nubia Redmagic 6 এই ফোনটা যে নতুন আঙ্গিয়ে আসবে ইতিমধ্যে তার টিজার কোম্পানীর তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে। এবং সেখানে একট অবিশ্বাসও আর অদ্ভত জিনিসও পাওয়া গিয়েছে। আর সেই মজার অদ্ভত জিনিস টি হলো ফোনটার ব্যাক সাইট, বা ব্যাক প্যানেলে ট্রান্সপারেন্ট সিস্টেম যুক্ত করা। আসলে বিষয়টি হলো সেটের কালার পরিবর্তন হয়ে যাওয়া। সেটটিতে বিভিন্ন রকমের কালার হতে পারে অথবা ট্রান্সপারেন্টও হতে পারে।


ZTE Nubia Redmagic 6

যতোদূর খরব পাওয়া গিয়েছে ২০২১ সাল নাগাদ এই অদ্ভত বিষয়টি নিয়ে ফোনটি বাজারে হাজির হতে পারে। অবশ্য এর আগে আমরা Vivo অথবা Oppo তে দেখেছি এই রকম কালার চেঞ্জের বিষয়টি। তবে এবার Nubia তাদের কে ছাড়িয়ে আরো একধাপে সামনে এগিয়ে গেলো। তারা দেখিয়ে দিলো যে ব্যাক প্যানেল বা ব্যাক সাইট এও শুধু মাত্র কালার চেঞ্জ নয়, পুরাপুরি ট্রান্সপারেন্ট করা যায়। বলতে পারেন ২০২১ সালের মোবাইল ফোন জগৎতে একটা চমক আনতে যাচ্ছে Nubia Redmagic 6. আর সেকারণে বলাই যায় যে ২০২১ সাল সত্যি মোবাইল ফোন জগৎটা খুব বেশি ইন্টারেস্টিং হতে যাচ্ছে মোবাইল প্রেমিদের জন্য। 


শুধু কি মোবাইল প্রেমিদের জন্যই ২০২১ সাল ? নাকি আরো অনেক কিছুই রয়েছে এই সালের টেকনোলজির আগমন বার্তায়। চলুন বন্ধুরা আমরা সেই সব বিষয়ে আরও কিছু জেনে নিই।


OnePlus 9 Final Look: OnePlus 9 এবং OnePlus E, OnePlus 9 Pro এই ফোন গুলো হয়তো মার্চ মাসের দিকে বাজারে আসবে। এখনও প্রায় তিন চার মাস বাকি রয়েছে। তবে ফোন গুলো সর্ম্পকে বিস্তারিত প্রায় সব কিছুই সবার সামনে চলে এসেছে ইতোমধ্যে। OnePlus E বা OnePlus 9 এ কি থাকতে পারে ইত্যাদি। তবে এবার সেই ফোনের Render সামনে চলে এসেছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যাচ্ছে যে সেই ফোনটাকে নাকি প্রটো টাইপও প্রকাশ পেয়েছে। এমনকি সেটার ছবিও নাকি দেখে নিয়েছে অনেকে। তবে ফোনটা বাজারে আসতে তো এখনও প্রায় তিন চার মাস বাকি। তাহলে এই সময় টা তারা কি নিয়ে বাজার গরম করবে। বাকি তিন মাস তাদের কোন বিষয়টি নিয়ে পাবলিসিটি হবে।


Apple Airport Max : গরম করার মতো আরো একটি বিশেষ খবর হলো। এ্যাপল তাদের Airport Max Launch করেছে। যেটা অবিশ্বাসও কম দামে Launch করেছে । যে দাম দিয়ে আপনি একটি এ্যাপল ফোন কিনে নিতে পারবেন। এ্যাপলের এমন একটি ডিভাইসের মালিকানা পেতে গেলে আপনাকে পকেটে হাত দিয়ে দেশীয় টাকায় প্রায় ৭০০০০ টাকা গুনতে হতে পারে। এখন আলোচনার বিষয়টি হলো কেন আপনি এত গুলো টাকা গুনবেন। তার কারন হলো ডিভাইসটিতে এ্যাপলের একটি লোগো রয়েছে, তবে সেটা আগের কোন লোগোর মতো না। সম্পূর্ণ আলাদা একটি ডিজাইনের লোগো।


তবে এই খবর কে ছাপিয়েও এখন দারুন আর একটি খবর বাজার গরম করছে, আর তা হলো এ্যাপলের যে Airport Max আপনি ব্যবহার করছেন তার কুশনটা যদি অর্থ্যাৎ দুই পাশে কানে যে কুশনটা লাগাচ্ছেন (পন্স)। সেগুলোর কোন একটা যদি আপনি রিপ্লেস করতে চান। তখন তার জন্য আপনাকে গুনতে হবে মাত্র ৬৫০০ টাকা। অবাক হচ্ছেন বন্ধুরা ! হ্যা অবাক হওয়ার মতোই কথা। কারন আমরা ওই দাম দিয়ে অনেকেই একটা স্মার্ট ফোন কিনে ব্যবহার করি।


Apple Self-drive Car : বন্ধুরা এবার আমরা ট্রেসলাকে নিয়ে একটু আলোচনায় মগ্ন হবো। কারন তারা এবার বাজারে নিয়ে আসছে ইলেকট্রিক সেলফ ড্রাইভিং কার মানে গাড়ি। অর্থ্যাৎ আপনি গাড়িতে বসে বসে মনের সুখে ঘুম বা অফিসিয়াল কাজ থেকে শুরু করে মোবাইল ফোনে যখন ব্যস্ত সময় পার করবেন। তখন গাড়িটি নিজের বুদ্ধি মত্তা দিয়ে রাস্তা ঘাট ট্রাফিক সিগন্যালের কবলে নানা রকম জ্যামের ভিতরেও নিয়ম কানূন মেনে চলে আপনার গন্তব্যে পৌছাবে। ভেবে দেখেছেন বন্ধুরা গাড়িটি আপনার জন্য কতটুকু দরকারি। তবে এখনই উত্তেজিত হওয়ার মতো ঘটনা ঘটেনি। তার কারন গাড়ি গুলো এখনও বাজারে আসেনি। বাণ্যিজিক ভাবে এগুলো এখনও উৎপাদন শুরু হয়নি। আরো বেশি গবেষণা এবং টেকনোলজির সংযোজন প্রক্রিয়াধিন অবস্থায় আছে। তবে বিষয়টি সত্যি সত্যিই ঘটে গেলে ভাবতে পারেন মানব জাতির জন্য আরো বেশি সুবিধা এবং আরাম নিয়ে আসবে, হয়তবা না।


তবে মজার আরো একটি খবর বাজারে কানাঘষা চলছে। বলতে পারেন খবরটি সত্যিকার অর্থেই ভাইরাল হয়েছে। আর তা হলো তাইওয়ান ভিত্তিক TSMC নামের যে কোম্পানীটি রয়েছে। যারা মূলত চিপ তৈরী করে, বিশেষ করে মোবাইলের বিভিন্ন রকমের হার্ডওয়ার তৈরী করে। সেই কোম্পানীটি এবার এ্যাপলের সাথে কাজ করছে। তাদের কারখানাতেও নাকি এ্যাপলের এই রকম গাড়ি বাণ্যিজিক ভাবে উৎপাদন হতে যাচ্ছে। ওয়াও।


Cyberpunk 2077 Game : বন্ধুরা অনেক কিছুই তো জানলেন। চলুন এবার আমরা cyberpunk 2077 এই গেমটি সর্ম্পকে আরও কিছু জেনে নিই। কারন এটা 1+ এর সাথে ট্রাইআপ করে ছিলো। 1+80 এই ফোনটা সাইবারপাম্প এডিশন দেখতে অসাধারণ ছিলো। যদিও দামটা অনেকটাই বেশী নির্ধারন করা হয়েছিলো। তাতে 1+80  ই আছে আর কিছু নেই। তবুও সাইবার পাং গেমটি কিন্তু প্রচার হয়ে গেছে। cyberpunk 2077 20002 নয়। cyberpunk 2077 সেটার প্রিবুকিং ছিলো। গেমসটার Launch হবে, সেখানে যে গেমস প্রিয় মানুষরা গেমসটি খেলার জন্য ডাউনলোড করবে। তার জন্য যে আগাম বুকিং বা প্রিবুকিং ছিলো। সেখানে ৪৮০ মিলিয়ন ডলার প্রিবুকিংয়ে উঠে এসেছে। কি বন্ধুরা অবাক হলেন তো, হ্যা অবাক তো হওয়ার কথাই। ভেবে দেখেন বর্তমান দুনিয়াতে গেমিং ইন্ডাস্ট্রিজ কোথায় অবস্থান করছে। হয়তো আগামীতে এই পৃথিবীতে অন্য সব ইন্ডাস্ট্রি কে ছাড়িয়ে গেমিং ইন্ডাস্ট্রি সবার উপরে উঠে আসবে।


SAMSANG Tab Update 2021 : বন্ধুরা এবার একটু পেছনের দিকে ফিরে তাকানো যাক। খুব বেশি পেছনের দিকে না। SAMSANG এর ৬ বছর আগের পুরানো ট্যাবলেট। সেই ট্যাবলেটে পুরানো প্রসেসর ছিলো এক্সিনোজ 5.8.2.0। এবং যেটা SNAPDRAGON প্রসেসর ছিলো তাতে ছিলো SNAPDRAGON 800 প্রসেসর। ৬ বছরের পুরো এই ট্যাবটাতে ২০১৪ সালের এই ট্যাবটাতে এখন ফর্মওয়ারের একটা আপডেট নিয়ে ডিভাইজটি আবারো বাজারে উকি দিচ্ছে। যারা সব সময় বলে আসছে যে শুধু মাত্র এ্যাপলের ফোনেই আপডেট আসে অন্য কেউ আপডেট আনে না। তাদের জন্য এটি একটি উদহারণ হতে পারে যে, SAMSANG  এর ৬ বছরের আগের পুরোনো ট্যাবলেট টিতে আপডেট এসেছে এবার।


Mi Mix Alfa Folding Phone : SAMSANG এর মতো SAWME ও MI MIX ALFA যেটা একটা রুট লেভেলের ফোন। মানে বিষয়টা এই রকম এবার ফ্লোডিং ফোন গেলো আর কি। রুট লেভেলের ফোনের দিন সামনে আপনাকে হাত ছানি দিয়ে ডাকছে। তো এই MI MIX ALFA জন্য একটা রুট লেভেলের ফোন তারা বাজারে আনতে পারে। কারন ইতোমধ্যে একটা রুটলেভেল ফোনের প্যাটার্ন তারা ফাইল করেছে। তাই এবার MI MIX ALFA এর তরফ থেকে পাওয়া যাবে হয়ত xiaomi ফ্লেক্সিংফোল্ড। তবে এখনই এতটা উচ্ছাছিতো হওয়া যাচ্ছে না। কারন আগামী বছর নাগাত এই মডেলের যে ফোন গুলো বাজারে আসবে আপাতত এগুলোর দামযে ভালই হবে সে বিষয়ে বিশেষ কোন সন্দেহ নেই।


তবে ফ্লোডিংফোনের দাম কিন্তু অনেকাংশে কমে যাবে। আশা করা যাচ্ছে যে, ২০২১ সালের দিকে গিয়ে এই ফোন গুলোর দাম হ্রাস পাবে। যখন ফোন গুলো আমাদের নাগালের মধ্যে চলে আসতে পারে। কারন xiaomi, OPPO, VIVO এমনকি Google এর মতো কোম্পানীও ফ্লোডিং ফোন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। এমন আরও একটি খবরও বাতাসে উড়ছে আর তা হলো, SAMSANG ছাড়াও এ্যাপলের iPhone আসতে পারে সেটাও ফ্লোডিং মুডে। বলাই বাহুল্য যে SAMSANG, Google, OPPO, VIVO এর মতো কোম্পানী গুলো যদি ফ্লোডিং ফোন নিয়ে কাজ করে তাহলে অন্য সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২১ সালের ভিতরই আমরা ফ্লোডিং ফোন গুলোকে বিভিন্ন শোরুমের ডিসপ্লে তে দেখতে পাবো।


আরো কিছু জিনিস আমরা আগামীতে ফোনের সাথে দেখতে পারবো যেমন, ব্যাক সাইটের প্যানেল নিয়ে নানা রকম এক্সপেরিমেন্ট, আন্ডার ডিসপ্লে ক্যামেরা। কি !!! জ্বি হ্যা বন্ধুরা, ঘটনা একদম সত্যি আপনার ফোনের ডিসপ্লের নিচের লুকিয়ে থাকবে ফোনের ক্যামেরা। এছাড়াও আরো অভিনব কোন নতুন টেকনোলজি দেখতে পারি আগামী বছর গুলোতে। যা কিনা বদলে দিতে পারে আপনার এবং অস্যখ্য টেক লাভারের চিন্তা ভাবনার সীমা।


SeeCloseComments
Cancel