-->

Xiaomi Mi 10 Ultra Price AND Full Specifications

Xiaomi Mi 10 Ultra Price AND Full Specifications by BDHELP24.com

বন্ধুরা Mi 10 Ultra হচ্ছে Xiaomi তৈরীকৃত এখন পর্যন্ত সব থেকে পারফেক্ট ফোন। সারা পৃথিবীতে এটা নিয়ে কানা ঘুষা চলতেছে। তো বন্ধুরা আমাদের আজকের রিভিউ এই ফোনটিকে নিয়েই। চলুন দেখে নিই এই ফোনটিতেতে আসলে কতটা চমক আছে নাকি সবাই হুদায় সময় নষ্ট করতেছে।


ডিসপ্লে (DISPLAY) : বিশ্লেষণের শুরুটা করতে চাই ফোনটিতে থাকা চমৎকার ডিসপ্লে দিয়ে। কারন হচ্ছে এই রকম গর্জিয়াস ডিসপ্লে আমরা এর আগে আর কখনোই দেখিনি। এতে ব্যবহার করা হয়েছে ওলেড প্যানেল, যেটা ওয়ান বিলিয়ন কালার সাপোর্ট। 120 গিগাহার্জ রিফ্রেশ রেট রয়েছে। আরো রয়েছে এইচডি আর টেন প্লাস সাপোর্ট আরো রয়েছে 8 হান্ড্রেড নিডস ব্রাইটনেস। ডিসপ্লে সাইজ 6.67 ইঞ্চি। যেটা আমার কাছে মনে হয়েছে বেশ ভালো একটা সাইজ। আর রেশিও ৮.৯৫ %। 

রেজুলেশন : রেজুলেশন Full HD এবং এবং এক্সপেক্টেশন ৯৫.৯। এতে পিপিআই পাওয়া যাবে থ্রি হান্ড্রেড এন্ড 86। ডিসপ্লেটিক কনিং গোরিয়াটিক গোর্জিলা গ্লাস ৫ দিয়ে প্রটেক্টেড। সুতরাং স্ক্র্যাচ পড়া নিয়ে খুব একটা দুশ্চিন্তা আপনাকে না করলেও চলবে। ডিসপ্লেটা কার্ব হওয়ায় একটা সাইট থেকে দেখলে অন্য সাইট টার ডিসপ্লে কিছুটা বার্নিংয়ের মতো লাগে। কার্ব ডিসপ্লে আপনি একে ১০/১০ দিবেন কোন সন্দেহ  ছাড়াই।


কালার (COLOR): ফোনের কালারের ক্ষেত্রে কয়েকটি এডিশন পাওয়া যাবে। কালো, মারকারি, ট্রান্সপারেন্ট কালার। এই সব কালারের ফোনটা হাতে নিয়ে মনে হবে যেন আল্ট্রা লেভেলের কোন সাইনটিক ডিভাইজ আপনার হাতে রয়েছে।


চিপ সেট (CHEAP SET): ফোনটিতে চিপ সেট হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে SNAPDRAGON 865 যেটা 7 ন্যানো মিটারের। আর এটাই হচ্ছে SNAPDRAGON এর এখন পর্যন্ত সব থেকে পাওয়ারফুল চিপ সেট । রয়েছে OCTACOR CPU যার একটি ২.৮৪ GHz তিনটি ২.৪২ GHz এর এবং চার ১.৮ GHz এর Kraio 585. আর জিপিএস হিসাবে পেয়ে যাবেন এইসডিনোজ 65G.


RAM : এর RAM এর বেশ কিছু ভেরিয়েশন রয়েছে। যেটা শুরু হয়েছে 8GB RAM দিয়ে। আর শেষ হয়েছে 16 GB পর্যন্ত।


মেমোরী (MEMORY) : ফোনটার ইন্টারনাল মেমোরী শুরু হয়েছে 128 GB থেকে শুরু করে 256 GB পর্যন্ত। এর স্টোরেজ EOPs 3.1. তবে ঘটনা চক্রে ফোনটাতে নেই কোন কার্ড স্লোড। মনে হয় সেটার খুব একটা বেশি দরকারও হবে। সুতরাং বাহিরের কোন মেমোরী ব্যবহার করার অনুমতি এই ফোনটি আপনাকে দিচ্ছে না।


সফটওয়্যার (SOFTWARE) : সফটওয়্যার হিসাবে এই ফোনেও পেয়ে যাবেন ANDOAID - 10 OUT OF THA BOX. সেই সাথে mi li 12. তবে দু:খজনক হলেও সত্য যেটা আপনাকে মানতেই হবে, আর তা হলো এই ফোনটা তৈরী করা হয়েছে, মানে পৃথিবীর বুকে আনা হয়েছে শুধু মাত্র চাইনিজদের জন্যই। তারমানে চাইনিজ ROM ছাড়া ফোনটাতে কোন GLOBAL ROM আপনি পাবেন না। আগামীতেও পাবেন না অন্য কোন ROM. এতে খুব একটা মন খারাপ করে থাকার চেয়ে বরং বিকল্প বুদ্ধি বের করা যেতে পারে। আর তা হলো PLAY STORE টা পরে DOWNLOAD করে নিতে হবে, এই আর কি।


ক্যামেরা (CAMERA) : ফোনটার অন্যতম সেরা বৈশিষ্ঠ হলো এর ক্যামেরা সার্ভিস। কাজেই চলুন ক্যামেরা জগৎটা আমরা ঘুরে আসি। মেইন ক্যামেরা ৪৮ MEGA PIXSEL. যেটার এপেচার হচ্ছে ১.৯ এবং ২৫ এমএম ওয়াইড। আরও একটি ৪৮ MEGA PIXSEL এর পেরিসকোপ টেলি ফটো লেন্স রয়েছে। যেটার এপাচর হচ্ছে ৪.১ এবং ১২০ মিলিমিটার ওয়াইড। আরো রয়েছে ১২ MEGA PIXSEL এর একটি টেলি ফটো লেন্স। যেটা 2X পর্যন্ত OPTICAL JOOM করা যাবে। আরো রয়েছে ২০ MEGA PIXSEL এর একটা আল্ট্রা ওয়াইড সেন্সর। 24 FPS 8 K তে ভিডিও করতে পারবেন। 30 অথবা 68 FPS 4 K রকর্ড করতে পারবেন। FULL HD তে 30/60 থেকে শুরু করে 900 এবং 60 FPS ভিডিও স্যুট করা যাবে।


রয়েছে জাইরো বেজ EIS HDR 10 রের্কডিং। কাজেই ছবির  কোয়ালিটি দেখার পর আপনার মুখ থেকে শুধ একটি কথায় উচ্চারিত হবে। আর তা হলো এক্সাইটিং পারফেক্ট অবিশ্বাস্য, অসম্ভব, নিদারুণ সুন্দর ছবির কোয়ালিটি। যেন পুরোটাই মাথা নষ্ট হওয়ার মতো ব্যাপার। কালার সেসারেশন, ডাইনামিক রেঞ্জ। কন্টাক রেশিও সার্পনেশ সহ আপনি যেদিন দিয়েই দেখেন না কেন এটার কোন তুলনা হয়না। আর তাই ফোনটি হাতে থাকলে আপনি সুযোগ সন্ধানে শুধু ছবিই তুলতে চাইবেন। সেটা সামনের ক্যামেরা আর পেছনের ক্যামেরা যে দিক দিয়েই হোক না কেন। কারন প্রতিটি ছবিই হবে দারুন প্রাণবন্ত আর সুন্দর।



লো - লাইটে মোবাইলে তোলা ছবি ভালো হয় না এই কথাটা আমরা সব সময়ই শুনে এসেছি। কিন্তু এই ফোনের ক্ষেত্রে সেটা ভুল প্রমানিত হবে। কারন লো- লাইটেও আপনি খুবই মনোমুগ্ধকর ছবি পেয়ে যাবেন। কাজেই জাষ্ট শুধু  বাটনে একটা ক্লিক আর ছবি হাজির আপনার সামনে। যে ছবি কিনা আপনাকে করে তুলবে প্রাণবন্তো আর সৃতি সংরক্ষণের সূতিকারগার। তবে এর জুম ফ্যাসালিটি ব্যবহার করে আপনি দূরের কোন সাবজেক্ট কে খালি হাতে ফোকাস করতে পারবেন না। মানে লাফালাফি করবে আর কি। কাজেই ভালো হবে যদি একটা টাইপ্যাড ব্যবহার করেন। এখন প্রশ্ন তো করতেই পারেন। যারা রিং রেঞ্জ এর ছবি তুলবে অথবা ফটোগ্রাফি করে তারা কি করবে ? এক্ষেত্রে আমি বলবো যারা ফটোগ্রাফার তারা তো আর ফোন দিয়ে ফটোগ্রাফি করবে না। তবে হতাশায় ডুব দেওয়ার কিছু নেই।


এছাড়াও আপনাদের জন্য আরও একটা সুখবর হচ্ছে, ফোনটাতে VOC MOD নামের একটা অপশন আপনি খুজে পাবেন। যারা বেসিক্যালি খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা ভিডিও বানাতে চান, বিশেষ করে শর্ট ভিডিও। একেবারে এপ্রোপ্রিয়েট সাউন্ড ইফেক্ট, এপ্রোপিয়েট এ মিউজিক সহ মানে এ রেডিমেড কিছু প্রিসেট দেওয়া হয়েছে এটাতে যেটা ব্যবহার করে আপনি দারুন সব ব্লগ বানাতে পারবেন ।


আর সেলফি ক্যামেরার কথা কি আর বলবো। এক কথায় অসাধারণ সে ক্যামেরা, যাকে আপনি চোখ বন্ধ করে অন্যতম সেরা ক্যামেরা বলতে পারেন। চাইলে চোখ বন্ধ কর আপনার জীবনের অন্যতম সেরা একটি ছবিও তুলতে পারেন। কারন ফোনটিতে সেলফি ক্যামেরায় খুবই ভালো ডায়নামিক রেশিও পেয়ে যাবেন। চমৎকার সার্পনেস, আর ৫ জি কালার সব মিলিয়ে এর সেলফি ক্যামেরা জাষ্ট অপ্রতিদ্বন্দ্বী। যা কিনা আপনাকে বানিয়ে দেবে সেলফি কিং অথবা সেলফি কুইন। কারন আপনি iPHONE XX MAX এর সঙ্গে যদি এই ফোনের ছবির মান কম্পেয়ার করেন তবে রেজাল্ট আপনি নিজের চোখেই দেখতে পারবেন। আর তাই সব রকম নিরিক্ষা শেষে আপনি এই ফোনের ক্যামেরা কে ১০/ সাড়ে ১০ দিতেই পারেন। 


চার্জিং স্পিড (CHARGE SPEED) : ১২০ ওয়াটের চার্জিং স্পিড রয়েছে ফোনটাতে। যেটা এই মুহুর্তে সারা পৃথিবীতে সর্বচ্চো। রয়েছে ওয়ারলেস চারজিং। এই প্রথম বারের মতো যুক্ত করা হয়েছে ফিফটি ওয়ার্ড ওয়ারলেস চাজিং। দিস ইজ আমেজিং…!!! বলতেই হয়। এ ক্ষেত্রে শুধু একবার আমেজিং বললে ভুল হবে, কারন এই ওয়ারলেস চাজিং ব্যবহার করে আপনি অন্য কোন ফোনেও  চার্জ দিতে পারবেন। 


ব্যাটারী (BETTARY) : ব্যাটারী ৪৫০০ Mha. ব্যাটারী পাওয়ারটা আপনার কাছে ইনিশিয়ালী একটু কম মনে হতেও পারে। তবে ব্যবহার করার পর বুঝতে পারবেন, এটা যথেষ্ট। Xiaomi দাবি করেছে যে প্রযুক্তিময় তাদের এই ফোনটি ২৩ মিনিটের মধ্যেই Full Charge করে ফেলতে পারবে। তবে তারা এটাও বলেছে যে এর ফাষ্ট চার্জিং আপনি শুধু বিশেষ কোন কারনেই ব্যবহার করবেন। নিয়মিত করলে এর ব্যাটারীর লংজিবিটি কিছুটা কমেও যেতে পারে। সুতরাং আমরা যেটা বলবো, শুধু মাত্র যখন আপনি এমন কোন পরিস্থিতিতে পরবেন যে খুব অল্প সময়ের মধ্যে আপনার ফোনটাকে Full Charge করতে হবে ঠিক তখনই মাত্র এর ফাষ্ট চার্জিং সুবিধা টা ব্যবহার করবেন।


গেম (GAME) : এই কোয়ালিটির একটি ফোন থেকে আপনি কি ধরনের গেমিং পারফরমেন্স আশা করেন। হ্যা বন্ধুরা আপনি যতটুকু আশা করেন, টিক ততটুকুই আপনি পেয়ে যাবেন। হালের CRAZY গেম পাবজি আপনি খেলতে পারবেন ফুল সেটিং দিয়ে। এছাড়া CALL OF DUTY একেবারে পানি মতো চলবে। ঠিক যেন মাখনের মতো। খেলতে খেলতে কখন যে আপনি ফাইনাল স্টেজে পৌছে যাবেন বুঝতেই পারবেন না। কারন খেলার সময় কোন লেক বা স্ট্যাটার আপনার চোখে পরবে না। সুতরাং গেমিং পারর্ফমেন্সে ফোনটাকে আপনি আবারো ১০/১০ দিবেন।


হিট (HITING) : এতে লিকুইড কুলিং সিস্টেম টু পয়েন্ট ও ব্যবহার করা হয়েছে আরো রয়েছে গ্রাফাইট হিটসিং। যেটা আপনার ফোনকে গরম হওয়া থেকে রক্ষা করবে। তবে সত্যি কথা বলতে কি গেমিং আর চার্জের সময় ফোন একটু গরম হবেই। 


ফোনের সাথে যা যা রয়েছে  (FREE WITH PHONE) : বক্স খুললে প্রথমেই পাবেন। চাইনিজ ভাষায় লেখা একটি নিমন্ত্রণ কার্ড। ফোন চার্জ দেওয়ার জন্য একটি  ১২০ ওয়াটের চার্জার। আরোও রয়েছে ক্যাবল, কেস ইত্যাদি।


সমস্যা সংক্রান্ত কিছু তথ্য (SOMETHING PROBLEM INFORMATION) : অনেক দামি ফোন। যেমন অনেক সুবিধা রয়েছে, তেমনি রয়েছে কিছু অসুবিধাও। এবার অনুসন্ধানী দৃষ্টি দিয়ে আমরা খুজবো সেই সকল অসুবিধা গুলো।


দাম (PRICE) : যেহেতু ফোনটা শুধু মাত্র চাইনিজদের জন্য রিলিজ করা হয়েছে। কাজেই আমাদের দেশে আসতে ফোনটাতে যাত্রা পথে বিভিন্ন ওয়ে ব্যবহার করতে হচ্ছে। আর তাতে করে ফোনের দামটাও বিভিন্ন সময় ওঠা নামা করছে। ৮০০০০ টাকার আশেপাশে দাম হলেও কখন যে কমে আর বারে তা বলা যাচ্ছে না।


দৈহিক গঠন (ওজন) ( WEIGHT): ফোনটা ব্যবহার করতে গিয়ে আপনার হাতে বেশ মোটা সোটা মনে হতে পারে। কারন ওজন প্রায় ২২২ গ্রামের কাছাকাছি। কিন্তু কি আর করার তাকে তো আর কোন জিমে ভর্তি করাতে পারবেন না।


ধীরগতির ফিঙ্গার প্রিন্ট (SLOW FINGER PRINT) : এই ডিসপ্লে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সরের ধীর চলো নীতির বিশ্বাস আপনাকে কিছুটা বিরক্ত করলেও করতে পারে।


হেড ফোন জ্যাক (HEAD PHONE JACK) : ৩.৫ মিলিমিটারের হেড ফোন জ্যাক না পাওয়ার দু:খ টা আপনাকে সহ্য করতে হবে। বিশেষ করে যারা মিউজিক লাভার রয়েছেন। সেক্ষেত্রে সমাধান হলো আপনাকে কনভাটার ব্যবহার করতে হবে।


নোটিফিকেশন লাইট (NOTIFICATION NIGHT) : ফোনটাতে কোন নোটিফিকেশন লাইট নেই।


অপ্রত্যাশিত নোটিফিকেশন (Unexpected NOTIFICATION) :  ফোনটিতে চাইনিজ ROM হওয়াতে মাঝে মাঝ কিছু চাইনিজ নোটিফিকেশন চলে আসতে পারে। তবে সব কিছু মিলিয়ে ফোনটা দুর্দান্ত। আপনার চাওয়া পাওয়ার প্রায় সবটুকুই খুজে পাবেন এখানে। হয়ত শুধু মূল্যটুকু ছাড়া।


Xiaomi Mi 10 Ultra Price List:

 

Xiaomi Mi 10 Ultra Price in Bangladesh BDT. 80,000/-

Xiaomi Mi 10 Ultra Price in India RS. 57,000/-

Xiaomi Mi 10 Ultra Price in Pakistan PKRs. 175,999/-

 

Tags: Xiaomi Mi 10 Ultra Price, Xiaomi Mi 10 Ultra Price in bd, Xiaomi Mi 10 Ultra Price in Bangladesh, Xiaomi Mi 10 Ultra Price in India, Xiaomi Mi 10 Ultra Price in Pakistan, Xiaomi Mi 10 Ultra Full Phone Specifications, Xiaomi Mi 10 Ultra Latest Price, Xiaomi Mi 10 Ultra Features, Xiaomi Mi 10 Ultra Review, Xiaomi Mi 10 Ultra Unboxing and Review, Xiaomi Mi 10 Ultra Official Price, Xiaomi Mi 10 Ultra Online Price.

SeeCloseComments
Cancel